শসার তেতো ভাব দূর করবেন কীভাবে? জানুন!

একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে প্রতিদিনের ডায়েটে যদি শসাকে অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন, তাহলে রোগমুক্ত জীবন পাওয়ার স্বপ্ন পূরণ হতে সময় লাগে না। কারণ শরীরকে কর্মক্ষম রাখতে শসার কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে। তাই তো স্যালাড হোক কী ঝাল মশলা দেওয়া রাজকীয় পাখোয়ান, সবার সঙ্গেই শসাকে সঙ্গী করা হয়ে থাকে। আর কেন পাঠানো হবে নাই বা বলুন! নিয়মিত এই ফলটি খেলে যে মেলে অনেক উপকার মেলে! যেমন, শসাতে রয়েছে কার্বোহাইড্রেট, উদ্ভিজ্জ প্রোটিন, আঁশ, ভিটামিন এ, সি, ই, কে, সোডিয়াম, পটাসিয়াম, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, জিংকসহ অনেক পুষ্টি উপাদান। এসব উপাদান শরীরকে নানা রোগ থেকে দূরে রাখে।

Image Source – https://www.prothomalo.com

তবে শসা খাওয়ার সময় একটি অসুবিধায় পড়তে হয়, তা হল শসার তেতোভাব। যা সত্যি বিড়ম্বনার কারণ হয়ে দাঁড়ায়।  এবার অনেকের মনে প্রশ্ন আসতে পারে। শসার স্বাদ তেতো হয় কেন? উত্তর সহজ। শসায় থাকে একটি জৈব যৌগ, নাম কিউকারবিটাসিন। এই কিউকারবিটাসিন-এর জন্যই শসার স্বাদ তেতো হয়। এই তেতো ভাবটা কি কোনো উপায়ে দূর করা সম্ভব? হ্যাঁ, সম্ভব। সব শসাই তেতো হতে পারে। আবার সব শসারই তেতো স্বাদ বদলে ফেলা যায়।

Image Source – https://banglalive.com

সাধারণত শসা ভাল করে ধুয়ে তার পরে গোড়া থেকে একটু কেটে ঘষে নেওয়া হয়। এর নেপথ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ রয়েছে।এর ফলে শসার তিতকুটে ভাবটা চলে যায়। আর এই তেতো ভাব দূর করতেই শসা কেটে ঘষে নিতে হয়। শসা কেটে ঘষতে থাকলে দেখা যায়, সাদা ফেনা গোত্রের একটি বস্তু ক্রমশ জমছে। এটিই কিউকারবিটাসিন। ঘর্ষণের ফলে যা শসার ভিতর থেকে বেরিয়ে আসতে থাকে ক্রমাগত। ফলে যতক্ষণ এই সাদা ফেনাটি বেরোচ্ছে, ততক্ষণ ঘষতে থাকা উচিত। ফেনা বেরোনো বন্ধ হয়ে গেলে বুঝবেন, শসা আর তেতো নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!