বাংলার খুদে বিজ্ঞানী আজ দেশের গর্ব, রইল তার আবিষ্কার ও সাফল্যের কিছু কথা

পশ্চিমবঙ্গ 24×7 ডিজিটাল ডেস্ক: ছোটো থেকে জীবনে কোনো নির্দিষ্ট পথে সাফল্য হওয়ার স্বপ্ন দেখি আমরা। আমাদের পরিবারের কাছ থেকে সেই নির্দিষ্ট বিষয়ে এগিয়ে যাওয়ার জন্য সবরকমের সাহায্যও পাই। কিন্তু অনেকসময় বড় হয়ে আমরা ঠিক কি হব তা সময় বলে দেয়। আসলে আমাদের সকলকেই ভগবান কিছুনা কিছু অনন্য ক্ষমতা দিয়ে পাঠান। আর সেই অনন্য ক্ষমতা থেকেই আমাদের মধ্যে কিছুনা কিছু আবিষ্কারের ভাবনা তৈরি হয়। ছোটো মনে সেই আবিষ্কার হয়তো আমাদের দেশ ও পৃথিবীর কাছে অমূল্য দান হতে পারে। এমন আবিষ্কার যা হয়তো আগে কেউই ভাবতে পারে নি। আর তেমনই এক যুগান্তকারী আবিষ্কার করলেন এক বঙ্গসন্তান। আমাদের রাজ্যেরই মেয়ে পূর্ব বর্ধমানের দিগন্তিকা বোস।

এমন একটি চশমা আবিষ্কার করেছে যেটি আলেকের প্রতিফলনকে কাজে লাগিয়ে সামনের জিনিস ছাড়াও পিছনের জিনিস দেখতেও সাহায্য করে। যার ফলে রেল চালক থেকে শুরু করে সুন্দরবনের মাছ, কাঠ ও মধু সংগ্রহকারীদের বিশেষ সুবিধা হবে। শুধু তাই নয়,মেমারির ভি এম ইন্সটিটিউশন ইউনিট 2 এর বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রী দিগন্তিকা আরও বেশ কয়েকটি জিনিস আবিষ্কার করে ফেলেছে মাত্র কয়েক বছরেই।

দিগন্তিকার অন্য একটি আবিষ্কারহল এমনই একটি জিনিস যা যেকোনো হ্যান্ড ড্রিল মেশিনের সঙ্গে যুক্ত করলে দেওয়ালে গর্ত করলেও ধুলো বাতাসে মিশবে না। ফলে যাঁদের এই ধুলোতে হাঁচি কাশির সমস্যা থাকে তাঁরা রেহাই পাবেন। র জন্য অতিরিক্ত কোন বিদুৎ খরচ হবে না । মাত্র ২৫০ টাকা খরচ করে এটি তৈরি করা সম্ভব হয়েছে।  

দিগন্তিকার তৃতীয় আবিষ্কার হল, বাইক আরোহীদের দেখতে এবং গাড়ি চালাতে বিশেষ সুবিধা করার জন্য আলোকের প্রতিফলনকে কাজে লাগিয়ে তৈরি হেলমেট। যেটি বাইক চালকদের অন্ধকারে দেখতে যেমন সুবিধা করবে তেমনি নিরাপদ ভাবে গাড়ি চালাতেও সাহায্য করবে।

তাঁর চতুর্থ আবিষ্কার হল, স্মার্ট সার্ভিক্যাল কলার। যেটি স্পন্ডেলাইটিস রোগীদের জন্য বিশেষ ভাবে সহায়ক। কলারের বিকল্প হিসেবে যেটি বিশেষ ভাবে কাজে লাগবে। আসলে যাংদের অতিরিক্ত ঘাম হয় তাঁদের ক্ষেত্রে এই সার্ভিক্যাল কালার খুবই উপাদেয়। বারনৌলি সূত্র ও এয়ার ক্লো ব্যবহার করে বাইরের ও কলারের ভিতরের তাপমাত্রা নিযন্ত্রণের ব্যবস্থা করে দেন তিনি। তাপমাত্রা ও আর্দ্রতা কে নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম। রেগুলেটরের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণও করা যাবে। যেমন ভাবা, তেমন কাজ।

আর নিজের সাফল্য ও দেশকে নতুন উপহার দেওয়ার জন্য তাঁর ঝুলিতে উঠেছে একাধিক পুরষ্কার। সেগুলি হল-

  1.  ডঃ এ পি জে আবদুল কালাম ইগনাইট এওয়ার্ড  ২০১৭ (ভারত সরকার ) যা ভারতের রাষ্ট্রপতি তার হাতে তুলে দেন। (Project.. DUST COLLECTING ATTACHMENT FOR DRILL MACHINE)
  2. ডঃ এ পি জে আবদুল কালাম ইগনাইট ২০১৮  Project. ..The Smart cervical Collar
  3.    পশ্চিম বঙ্গ রাজ্য ছাত্র যুব বিজ্ঞান মেলা  (রাজ্যের প্রথম ) যা পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পক্ষে মন্ত্রী লক্ষ্মীরতন শুক্লা তার হাতে তুলে দেন।
  4.   স্টার্ট আপ ইন্ডিয়া এওয়ার্ড ২০১৮ ( আই আই টি ভুবনেশ্বর ) ।
  5.          ২৫তম চিল্ড্রেন্স সাইন্স কংগ্রেস ( জাতীয় , রাজ্য , জেলা স্তরে বিশেষ স্বীকৃতি পায় ) আয়োজক ভারত সরকার ২০১৭।
  6.        Certificate of Appreciation Mission to Touch The Sun ‘PARKER SOLAR PROBE’ Project by National Aeronautics and Space Administration (NASA) USA.
  7. ফেস্টিভ্যাল অফ ইনভেশন ১৯-২৩ মার্চ ২০১৮ এ রাষ্ট্রপতি ভবনের আমন্ত্রণে যোগদান করে।  
  8. পঞ্চরত্ন ২০১৭ মেমারি মিউনিসিপ্যালিটি ।
  9.  সেরা বাঙালি ২০১৮ পূর্ব বর্ধমান ( আনন্দ বার্তা চ্যানেল)।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: